বৃটিশ বিরোধী সন্যাসী আন্দোলনের কেন্দ্র ছিলো জামালপুরের দয়াময়ী মন্দির

বৃটিশ বিরোধী সন্যাসী আন্দোলনের ফকির মজনুশাহের আস্তানা ছিলো জামালপুরের দয়াময়ী মন্দির। এই মন্দিরটি ইতিহাসের কালের সাক্ষী। ইতিহাসবিদের মতে, সে সময় হিন্দু সন্যাসী ও মুসলিম সন্যাসীদের পদচারনায় ভরপুর থাকতো। সেই থেকে জমালপুরের আদি নাম ছিলো সন্যাসী নগর। ফকির মজনু শাহ ছিলো সন্যাসীদের নেতা।
জানা যায়, আজ থেকে তিনশ বছর আগে বাংলা ১১০৪ সনে বাংলার নবাব মুর্শিদ কুলী খানের বিশ্বস্থ সহচর ময়মনসিংহের জাফরশাহী পরগনার জায়গরিদার শ্রী কৃষ্ণরায় চৌধুরী দয়াময়ী মহদেব্য মাতার নামে দয়াময়ী মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের কাছে দয়াময়ী মন্দির খুবই প্রসিদ্ধ। ইতিহাস বিদদের মতে শ্রী কৃষ্ণ রায় চৌধুরীর পুত্র বগুরা থেকে ময়মনসিংহের রাম গোপালপুরে এসে জমিদারি গ্রহণ কালে এ মন্দিরটি রাম গোপালপুরের জমিদার কর্তৃক পরিচালিত হতে থাকে। শ্রীকৃষ্ণ রায় চৌধুরীরর পুত্র বধু নারয়নী দেবী চৌধুরানী তৎকালীন বাংলার গভর্নর ওয়ারেন হেস্টিংয়ের কাছ থেকে ৫হাজার একর জমি দেবওর এস্টেটের দান করেন।
দয়ময়ী মন্দিরের ভেতরে শিব মন্দির রয়েছে। শিব মন্দিরটি ঘিরে বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের সুত্রপাত ঘটে। হিন্দু ও মুসলিম সন্যাসীরা দিনের বেলায় ধর্মীয় উপাষনায় ব্যস্ত থাকতেন আর রাতের বেলায় চলতো দেশীয় অস্ত্রের মহড়া। ফকির মজনুশাহ প্রায়ই যাতায়াত করতেন এবং উত্তাল ব্রহ্মপুত্র নদের বজরা নৌকা করে সন্যাসীদের নিয়ে আসতেন।
ঐ সব সন্যাসীরা বৃটিশদের তাড়ানোর স্বপ্ন দেখতেন। ইতিহাসবিদদের মতে মন্দিরটি ছিলো সন্যাসীদের ক্যাম্প। ফকির মজনুশাহের নেতৃত্বে বৃটিশদের সাথে সন্যাসীদের তুমুল যুদ্ধ হয়। এ যুদ্ধে ফকির মজনুশাহ সহ অসংখ্য সন্যাসী শহীদ হন। ফকির মজনুশাহের মৃত্যুর পর সন্যাসী বিদ্রহ থেকে গেলেও সন্যাসীরা বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়েন। যা ইতিহাসে সন্যাসী বিদ্রহ নামে খ্যাত।
কাজী রফিকুল হাসান, মালগুদাম রোড, মুকন্দবাড়ী, জামালপুর প্রতিনিধি।
জামালপুর,রোববার ০৯ জুন এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

 

Facebook Comments Box

সর্বশেষ আপডেট



» আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা

» দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে নয়াদিল্লি গেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

» ঈদের পঞ্চম দিন: পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত কুয়াকাটা সৈকত

» কুয়াকাটার সৈকতে দেখা মিলছে ইয়েলো-বেলিড সি স্নেকের

» ফরিদপুরে মধুখালীতে বাসের চাপায় ইজিবাইকের দুই যাত্রী নিহত

» কক্সবাজার শহরের বাদশাঘোনা এলাকায় পাহাড়ধসে ঘুমন্ত স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু

» বাংলাদেশের যা কিছু অর্জন, সবকিছুই এসেছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে : পলক

» কোয়ান্টিটি না গুণগত মানসম্মত চিকিৎসা চাই-স্বাস্থ্য মন্ত্রী

» হামিদপুর ইউনিয়নে নব বঁধু কে যৌতুকের জন্য শাশুড়ীর প্ররোচনায় নির্যাতন পাষন্ড স্বামী কারাগারে

» মাধবদীর আলগী তন্তুবায় সমবায় সমিতির ব্যাবস্থাপনা কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত মিজান সভাপতি হুমায়ন সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত

 

প্রকাশক ও সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

 

বার্তা সম্পাদক: খন্দকার সোহাগ হাছান

সহ বার্তা সম্পাদক: কামাল হোসেন খান
সহ বার্তা সম্পাদক: কাজী আতিকুর রহমান আতিক (আবির)

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত নিউজপোর্টাল গভঃ রেজিঃ নং ১১৩

আজ শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ, ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বৃটিশ বিরোধী সন্যাসী আন্দোলনের কেন্দ্র ছিলো জামালপুরের দয়াময়ী মন্দির




বৃটিশ বিরোধী সন্যাসী আন্দোলনের ফকির মজনুশাহের আস্তানা ছিলো জামালপুরের দয়াময়ী মন্দির। এই মন্দিরটি ইতিহাসের কালের সাক্ষী। ইতিহাসবিদের মতে, সে সময় হিন্দু সন্যাসী ও মুসলিম সন্যাসীদের পদচারনায় ভরপুর থাকতো। সেই থেকে জমালপুরের আদি নাম ছিলো সন্যাসী নগর। ফকির মজনু শাহ ছিলো সন্যাসীদের নেতা।
জানা যায়, আজ থেকে তিনশ বছর আগে বাংলা ১১০৪ সনে বাংলার নবাব মুর্শিদ কুলী খানের বিশ্বস্থ সহচর ময়মনসিংহের জাফরশাহী পরগনার জায়গরিদার শ্রী কৃষ্ণরায় চৌধুরী দয়াময়ী মহদেব্য মাতার নামে দয়াময়ী মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের কাছে দয়াময়ী মন্দির খুবই প্রসিদ্ধ। ইতিহাস বিদদের মতে শ্রী কৃষ্ণ রায় চৌধুরীর পুত্র বগুরা থেকে ময়মনসিংহের রাম গোপালপুরে এসে জমিদারি গ্রহণ কালে এ মন্দিরটি রাম গোপালপুরের জমিদার কর্তৃক পরিচালিত হতে থাকে। শ্রীকৃষ্ণ রায় চৌধুরীরর পুত্র বধু নারয়নী দেবী চৌধুরানী তৎকালীন বাংলার গভর্নর ওয়ারেন হেস্টিংয়ের কাছ থেকে ৫হাজার একর জমি দেবওর এস্টেটের দান করেন।
দয়ময়ী মন্দিরের ভেতরে শিব মন্দির রয়েছে। শিব মন্দিরটি ঘিরে বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের সুত্রপাত ঘটে। হিন্দু ও মুসলিম সন্যাসীরা দিনের বেলায় ধর্মীয় উপাষনায় ব্যস্ত থাকতেন আর রাতের বেলায় চলতো দেশীয় অস্ত্রের মহড়া। ফকির মজনুশাহ প্রায়ই যাতায়াত করতেন এবং উত্তাল ব্রহ্মপুত্র নদের বজরা নৌকা করে সন্যাসীদের নিয়ে আসতেন।
ঐ সব সন্যাসীরা বৃটিশদের তাড়ানোর স্বপ্ন দেখতেন। ইতিহাসবিদদের মতে মন্দিরটি ছিলো সন্যাসীদের ক্যাম্প। ফকির মজনুশাহের নেতৃত্বে বৃটিশদের সাথে সন্যাসীদের তুমুল যুদ্ধ হয়। এ যুদ্ধে ফকির মজনুশাহ সহ অসংখ্য সন্যাসী শহীদ হন। ফকির মজনুশাহের মৃত্যুর পর সন্যাসী বিদ্রহ থেকে গেলেও সন্যাসীরা বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়েন। যা ইতিহাসে সন্যাসী বিদ্রহ নামে খ্যাত।
কাজী রফিকুল হাসান, মালগুদাম রোড, মুকন্দবাড়ী, জামালপুর প্রতিনিধি।
জামালপুর,রোববার ০৯ জুন এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

 

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



 

প্রকাশক ও সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

 

বার্তা সম্পাদক: খন্দকার সোহাগ হাছান

সহ বার্তা সম্পাদক: কামাল হোসেন খান
সহ বার্তা সম্পাদক: কাজী আতিকুর রহমান আতিক (আবির)

প্রধান কার্যালয়: গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা প্রগতি স্বরণী বাড্ডা ঢাকা-১২১২ | ব্রাঞ্চ অফিস: ২৪৭ পশ্চিম মনিপুর, ২য় তলা, মিরপুর-২, ঢাকা -১২১৬।

Phone: +8801714043198, Email: hbnews24@gmail.com

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি । সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © HBnews24.com