হারিয়ে গেছে জামালপুরের ঐতিহ্য কাসা শিল্প

ইতিহাস ও ঐতিহ্যের দিক দিয়ে জামালপুরের খ্যাতি ছিলো। কাসা শিল্পের জন্য বিখ্যাত। আজ কাসা শিল্প হারিয়ে গেছে। যে কয়েক জন ব্যক্তি এ শিল্প টিকিয়ে রেখেছে তারাও এ পেশা ধরে রাখতে পারছে না। ফলে কাসা শিল্প বিলীন হয়ে যাচ্ছে।
জানা যায়, জামালপুর সদর উপজেলা ও জেলা শহরে সকাল বাজার এলাকায় কাসা শিল্প ছিলো। আজ থেকে দেড়শ বছর আগে অত্র এলাকার হিন্দু কর্মকার বসতি থাকায় কাসা শিল্প গড়ে উঠে ছিলো। সে সময় বিদেশী বণিকরা এসে তমালতলা এলাকায় রানীগঞ্জ বাজারে কাসার বিভিন্ন সামগ্রী কেনা বেচা করতো। সকাল বাজার এলাকাটি কাসারু পট্রি নামে এখনও পরিচিত। বর্তমানে ২/১টি কাসার দোকান রয়েছে। বাকীরা এ পেশা ছেড়ে দিয়ে অন্য পেশায় চলে গেছে। অন্য পেশায় চলে যাওয়ার কারণ অনুসন্ধান কালে জানা গেছে কাসার সামগ্রী তৈরি করতে যে কাঁচামাল প্রয়োজন তার দাম বেশি থাকায় তা তৈরি করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে এ শিল্প হুমকীর মুখে পড়েছে।
এ দিকে মেলান্দহ,মাদারগঞ্জ,ইসলামপুর,দেওয়ানগঞ্জ ও সরিষাবাড়ী কাঁসা শিল্পের বেশ কদর ছিলো। এর মধ্যে ইসলাপুর ও সরিষাবাড়ী কাঁসা শিল্পের বেশ কদর ছিলো। ইসলামপুর উপজেলার কাসা শিল্প ভারতীয় উপমহাদেশ বিখ্যাত। ইসলামপুরের কাঁসা সামগ্রী ভারতীয় বাজারে ব্যপক চাহিদা ছিলো। সরেজমিনে এ উপজেলার কাসারু পট্রি ঘুরে দেখা গেছে হাতে গোনা ১০/১২জন কাসা শিল্পী রয়েছে। তারা কোন রকমে বাপ দাদার পেশা ধরে রেখেছে। তাদের সাথে কথা বললে তারা বলেন,এ শিল্প কোন ভাবেই ধরে রাখা যাচ্ছে না। চাহিদা থাকলেও কাঁচামালের ব্যপক দাম। যার জন্যে কাঁসা সামগ্রী তৈরি করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে হারিয়ে যাচ্ছে কাসা শিল্প।

কাজী রফিকুল হাসান, মালগুদাম রোড, মুকন্দবাড়ী, জামালপুর প্রতিনিধি।
জামালপুর,বৃহস্পতিবার ১৪ মার্চ এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments Box

সর্বশেষ আপডেট



» কবে খনন করা হবে ফুলবাড়ী যমুনা নদী ফুলবাড়ী শহর দিয়ে বয়ে যাওয়া যমুনা নদীতে পলি জমে ভরাট হয়ে গেছে॥

» বেড়েই চলছে গরমের তীব্রতা।। কলাপাড়ায় নিম্ন আয়ের মানুষ দিশেহারা

» অনিবন্ধিত ও অবৈধ অনলাইনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া হবে-তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী

» এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায় না করার নির্দেশনা

» ফরিদপুরে যাত্রীবাহী বাস ও পিকআপভ্যানের সংঘর্ষে নিহত ১৩ জন নিহত

» জামালপুরে পারিবারিক পুষ্টি বাগান বাড়ছে

» নরসিংদীর মাধবদীতে এক ইউপি মেম্বারকে গুলি করে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা

» সচিবালয়ে প্রথম কর্মদিবসে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা কর্মস্থলে ফিরে সহকর্মীদের সঙ্গে ঈদ ও নববর্ষের শুভেচ্ছা বিনিময়

» রাজধানীর হাতিরঝিল থেকে অজ্ঞাতপরিচয় এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

» জামালপুরে কৃষিতে বেড়েছে আধুনিক যন্ত্রপাতির ব্যবহার

 

প্রকাশক ও সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

 

বার্তা সম্পাদক: খন্দকার সোহাগ হাছান

সহ বার্তা সম্পাদক: কামাল হোসেন খান
সহ বার্তা সম্পাদক: কাজী আতিকুর রহমান আতিক (আবির)

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত নিউজপোর্টাল গভঃ রেজিঃ নং ১১৩

আজ মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ, ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হারিয়ে গেছে জামালপুরের ঐতিহ্য কাসা শিল্প




ইতিহাস ও ঐতিহ্যের দিক দিয়ে জামালপুরের খ্যাতি ছিলো। কাসা শিল্পের জন্য বিখ্যাত। আজ কাসা শিল্প হারিয়ে গেছে। যে কয়েক জন ব্যক্তি এ শিল্প টিকিয়ে রেখেছে তারাও এ পেশা ধরে রাখতে পারছে না। ফলে কাসা শিল্প বিলীন হয়ে যাচ্ছে।
জানা যায়, জামালপুর সদর উপজেলা ও জেলা শহরে সকাল বাজার এলাকায় কাসা শিল্প ছিলো। আজ থেকে দেড়শ বছর আগে অত্র এলাকার হিন্দু কর্মকার বসতি থাকায় কাসা শিল্প গড়ে উঠে ছিলো। সে সময় বিদেশী বণিকরা এসে তমালতলা এলাকায় রানীগঞ্জ বাজারে কাসার বিভিন্ন সামগ্রী কেনা বেচা করতো। সকাল বাজার এলাকাটি কাসারু পট্রি নামে এখনও পরিচিত। বর্তমানে ২/১টি কাসার দোকান রয়েছে। বাকীরা এ পেশা ছেড়ে দিয়ে অন্য পেশায় চলে গেছে। অন্য পেশায় চলে যাওয়ার কারণ অনুসন্ধান কালে জানা গেছে কাসার সামগ্রী তৈরি করতে যে কাঁচামাল প্রয়োজন তার দাম বেশি থাকায় তা তৈরি করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে এ শিল্প হুমকীর মুখে পড়েছে।
এ দিকে মেলান্দহ,মাদারগঞ্জ,ইসলামপুর,দেওয়ানগঞ্জ ও সরিষাবাড়ী কাঁসা শিল্পের বেশ কদর ছিলো। এর মধ্যে ইসলাপুর ও সরিষাবাড়ী কাঁসা শিল্পের বেশ কদর ছিলো। ইসলামপুর উপজেলার কাসা শিল্প ভারতীয় উপমহাদেশ বিখ্যাত। ইসলামপুরের কাঁসা সামগ্রী ভারতীয় বাজারে ব্যপক চাহিদা ছিলো। সরেজমিনে এ উপজেলার কাসারু পট্রি ঘুরে দেখা গেছে হাতে গোনা ১০/১২জন কাসা শিল্পী রয়েছে। তারা কোন রকমে বাপ দাদার পেশা ধরে রেখেছে। তাদের সাথে কথা বললে তারা বলেন,এ শিল্প কোন ভাবেই ধরে রাখা যাচ্ছে না। চাহিদা থাকলেও কাঁচামালের ব্যপক দাম। যার জন্যে কাঁসা সামগ্রী তৈরি করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে হারিয়ে যাচ্ছে কাসা শিল্প।

কাজী রফিকুল হাসান, মালগুদাম রোড, মুকন্দবাড়ী, জামালপুর প্রতিনিধি।
জামালপুর,বৃহস্পতিবার ১৪ মার্চ এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



 

প্রকাশক ও সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

 

বার্তা সম্পাদক: খন্দকার সোহাগ হাছান

সহ বার্তা সম্পাদক: কামাল হোসেন খান
সহ বার্তা সম্পাদক: কাজী আতিকুর রহমান আতিক (আবির)

প্রধান কার্যালয়: গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা প্রগতি স্বরণী বাড্ডা ঢাকা-১২১২ | ব্রাঞ্চ অফিস: ২৪৭ পশ্চিম মনিপুর, ২য় তলা, মিরপুর-২, ঢাকা -১২১৬।

Phone: +8801714043198, Email: hbnews24@gmail.com

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি । সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © HBnews24.com