উত্তর মুগদায় শিক্ষার্থী পিয়াস হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িত ০৩ আসামি’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব

বহুল আলোচিত রাজধানীর উত্তর মুগদায় কবি নজরুল কলেজের শিক্ষার্থী পিয়াস ইকবাল নূর’কে নৃশংসভাবে ছুরিকাঘাতে হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িত অন্যতম প্রধান ০৩ আসামি’কে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত আলামতসহ রাজধানীর মুগদা ও মানিকগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন, র‌্যাব প্রতিষ্ঠালগ্ন হতে বিভিন্ন ধরণের অপরাধ নির্মূলের লক্ষ্যে অত্যন্ত আন্তরিকতা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে আসছে। সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ নির্মূল ও মাদকবিরোধী অভিযানের পাশাপাশি খুন, চাঁদাবাজি, চুরি, কিশোর গ্যাং, ডাকাতি ও ছিনতাই চক্রের সাথে জড়িত বিভিন্ন সংঘবদ্ধ ও সক্রিয় সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্যদের গ্রেফতার করে সাধারণ জনগণের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বিনির্মাণের লক্ষ্যে র‌্যাবের জোরালো তৎপরতা অব্যাহত আছে। এছাড়াও বিভিন্ন হত্যাকান্ডে দীর্ঘদিন যাবৎ আত্মগোপনে থাকা চাঞ্চল্যকর ও ক্লু-লেস হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচনপূর্বক হত্যাকারীদেরকে গ্রেফতার করে দেশের সর্বস্তরের মানুষের কাছে সুনাম অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে র‌্যাব।

গত ০৭ মার্চ ২০২৪ তারিখ আনুমানিক ২২৪০ ঘটিকায় রাজধানীর উত্তর মুগদা এলাকায় ০১টি পুরাতন মোবাইল ফোন বিক্রয়ের টাকা পরিশোধের দ্ব›েদ্ব কবি নজরুল সরকারী কলেজের শিক্ষার্থী পিয়াস ইকবাল নূর এবং শামীম হোসেন’কে নৃশংসভাবে ছুরিকাঘাত করা হয়। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজন তাদেরকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক পিয়াস’কে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পরদিন ভিকটিম পিয়াস এর পিতা বাদী হয়ে মুগদা থানায় ০৬ জনকে আসামি করে এবং কয়েকজন অজ্ঞাতনামা উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন; যার মামলা নং-০৯, তারিখ ০৮ মার্চ ২০২৪। নৃশংস এই হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে এবং বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় প্রচারিত হলে দেশব্যাপী ব্যাপক আলোচিত হয়। র‌্যাব উক্ত হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে।

এরই ধারাবাহিকতায় গত রাতে র‌্যাব-৩ এর একটি আভিযানিক দল রাজধানীর মুগদা এবং মানিকগঞ্জের হরিরামপুর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে উক্ত হত্যাকান্ডের সাথে সরাসরি জড়িত অন্যতম প্রধান তিন আসামি ১। মোঃ খালিদ হাসান (১৮), পিতা-মোঃ মোস্তফা কামাল, মাহিগঞ্জ, রংপুর, ২। মোঃ আরিফ হোসেন (২১), পিতা-মোঃ আব্দুল মালেক, ভেদরগঞ্জ, শরীয়তপুর এবং ৩। মোঃ মেহেদী হাসান মিরাজ (২০), পিতা- সৈয়দ হক, মুগদা, ঢাকাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। উদ্ধার করা হয় হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত রক্তমাখা ছুরি। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা উক্ত হত্যাকান্ডের সাথে তাদের সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে তথ্য প্রদান করে।

গ্রেফতারকৃতদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, উক্ত হত্যা মামলার প্রধান আসামি আমির উদ্দিন আহমেদ অনিক চোরাই মোবাইল ফোন কেনা-বেচার ব্যবসা করতো। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ তারিখ অনিকের কাছ থেকে নিহত ভিকটিম পিয়াসের বন্ধু মাহির ৪৩০০ টাকা বাকিতে ০১টি চোরাই মোবাইল ফোন ক্রয় করে। ক্রয়কৃত মোবাইলের টাকা ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ তারিখের মধ্যে পরিশোধ করার কথা থাকলেও মাহির আর্থিক সমস্যার কারণে তা পরিশোধ করতে পারেনি। যথাসময়ে টাকা পরিশোধ না করায় অনিক তার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং বিভিন্ন সময় প্রাণনাশের হুমকি দিতে থাকে। পরবর্তীতে গত ০৭ মার্চ ২০২৪ তারিখ সন্ধ্যায় অনিক গ্রেফতারকৃত খালিদ, আরিফ, মিরাজ ও উক্ত হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত অপরাপর আসামি অর্নব এবং রাব্বী’কে নিয়ে মোবাইল বিক্রয়ের বাকি টাকা আদায়ের জন্য মাহিরের বাসায় যায়। তারা মাহিরকে বাসায় না পেয়ে মাহিরের মায়ের কাছে মোবাইল বিক্রয়ের পাওনা টাকা দাবী করে এবং অশোভনীয় আচরণ করে। সেখানে মাহিরের মা একদিন পর টাকা পরিশোধ করে দিবে বলে তাদের জানিয়ে দেয়। টাকা পরিশোধের আশ্বাস পেয়ে তারা মাহিরের বাসা থেকে চলে যায়। পরবর্তীতে মাহির বাড়িতে এসে তার মায়ের কাছে উক্ত ঘটনা জানতে পারে। বিষয়টি মাহির তার বন্ধু ভিকটিম পিয়াস ও শামীমকে জানায়।
জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানা যায় যে, ভিকটিম পিয়াস ও শামীম মধ্যস্থতাকারী হিসেবে বিষয়টি মীমাংসা করার জন্য ঘটনার দিন সন্ধ্যায় অনিকের সাথে উত্তর মুগদা এলাকায় অনিকের আড্ডার পয়েন্টে দেখা করে। এসময় অনিক, পিয়াস এবং শামীমকে তুই তুকারি সম্বোধন করে। পরবর্তীতে একই দিন রাত ১০,৩০ ঘটিকায় পিয়াস অনিককে ফোন দিয়ে লিটল এনজেল স্কুলের গলি পুনরায় আসতে বলে। অনিক সেখানে পোঁছালে পিয়াস এবং শামীম অনিকের কাছে কেন সে তাদের তুই তুকারি সম্বোধন করেছিল তার ব্যাখ্যা চায়। পূর্ব থেকেই এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, গ্রুপিং এবং সিনিয়র জুনিয়র দ›দ্ব থাকায় তাদের মধ্যে বিরোধ চলছিল। এসময় তাদের মধ্যে বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। অনিক ভিকটিম পিয়াস ও শামীমকে উচিত শিক্ষা দেয়ার জন্য গ্রেফতারকৃতদের ফোন করে সেখানে আসতে বলে। অনিকের ফোন পেয়ে অনিকের বন্ধু গ্রেফতারকৃত খালিদ, আরিফ, মিরাজসহ মামলার অপর আসামি অর্নব মোটরসাইকেলযোগে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় এবং গ্রেফতারকৃত খালিদ পার্শ্ববর্তী একটি গ্যারেজ থেকে বেসবল খেলার স্টিক নিয়ে আসে। এসময় তারা বেসবল খেলার স্টিক ও লাঠি দিয়ে ভিকটিম পিয়াস ও শামীমকে নৃশংসভাবে এলোপাতাড়ি আঘাত করতে থাকে। একপর্যায়ে মামলার অপর আসামি রাব্বী পার্শ¦বর্তী একটি দোকান থেকে আচমকা জোর পূর্বক একটি নতুন ধারালো ছুরি নিয়ে ভিকটিম পিয়াসের পিঠের ডান পাশে এবং শামীমের ডান কাধে আঘাত করলে তারা মাটিতে লুটিয়ে পড়ে বলে গ্রেফতারকৃতরা জানায়। ভিকটিমরা মাটিতে লুটিয়ে পড়লে গ্রেফতারকৃত খালিদ, আরিফ, মিরাজসহ অন্যান্যরা ভিকটিমদের পুনরায় এলোপাতাড়িভাবে বেসবল খেলার স্টিক ও লাঠি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাথাড়ি আঘাত করতে থাকে। পিয়াস এবং শামীমের চিৎকারে লোকজন জড়ো হলে তারা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজন ভিকটিমদের রক্তাক্ত ও মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক পিয়াসকে মৃত ঘোষণা করেন। পরবর্তীতে হত্যাকান্ডের ঘটনা এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে গ্রেফতারকৃতরা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপন চলে যায়।

৬। গ্রেফতারকৃত খালিদ স্থানীয় একটি স্কুল থেকে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত পড়ালেখা করে। পরবর্তীতে সে তার বাবার সাথে এ্যাম্বুলেন্সের কাজে সহযোগিতা করতো। সে উত্তর মুগদা এলাকায় ‘গ্যাং স্টার রাব্বী’ গ্রæপ এর সদস্য হিসেবে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, অলি-গলিতে মাদক ব্যবসা, মাদক সেবনসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছিল। সে ইতিপূর্বে রাজধানীর মুগদা থানায় সড়ক পরিবহন আইন মামলায় ১ মাস কারাভোগ করে জামিনে বের হয় বলে জানায়। এছাড়াও সে রাজধানীর পল্টন মডেল থানায় মাদক সংক্রান্ত মামলায় ১৫ দিন কারাভোগ করেছে বলে জানা যায়।

গ্রেফতারকৃত মিরাজ স্থানীয় একটি স্কুলে ১০ম শ্রেনী পর্যন্ত লেখাপড়া করে। সে মামলার আসামি রাব্বীর অন্যতম সহযোগী এবং ‘গ্যাং স্টার রাব্বী’ গ্রুপ এর সদস্য হিসেবে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছিল বলে জানা যায়। সে উক্ত হত্যাকান্ডের পর আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর গ্রেফতার এড়াতে মানিকগঞ্জ এলাকায় আত্মগোপন করে। পরবর্তীতে আত্মগোপনে থাকাবস্থায় র‌্যাব কর্তৃক গ্রেফতার হয়। গ্রেফতারকৃত আরিফ এইচএসসি পাশ করে স্থানীয় এলাকায় একটি ইন্টারনেট অফিসে কাজ করতো। সে উক্ত মামলার আসামি অনিকের অন্যতম সহযোগী হিসেবে কাজ করতো।

গ্রেফতারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।
ঢাকা ,সোমবার ১১ র্মাচ এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments Box

সর্বশেষ আপডেট



» স্বর্ণের দাম এক হাজার ২৮৪ টাকা কমিয়ে নতুন দাম নির্ধারণ

» মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত

» উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় রেমাল।। কলাপাড়ায় প্রস্তুত রয়েছে আশ্রয় কেন্দ্র ও মুজিব কেল্লা

» উত্তর বাড্ডা জামতলা পানির পাম্প এলাকায় এক যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

» রাজধানীর বাড্ডা বটতলা এলাকায় নির্মাণাধীন ভবনে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এক রডমিস্ত্রীর মৃত্যু

» কুয়াকাটার সৈকতে আবারও ভেসে এসেছে মৃত ডলফিন

» বিএনপির পৃষ্ঠপোষকতায় কিছু সাম্প্রদায়িক অশুভ শক্তি তৎপর

» কালিহাতীতে পাইলিংবাহী একটি লোবেটের পেছনে কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় চালক ও হেলপার নিহত

» ১০ তলা বঙ্গবাজার পাইকারি মার্কেটসহ চারটি উন্নয়ন প্রকল্পের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী

» জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৫তম জন্মবার্ষিকী আজ

 

প্রকাশক ও সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

 

বার্তা সম্পাদক: খন্দকার সোহাগ হাছান

সহ বার্তা সম্পাদক: কামাল হোসেন খান
সহ বার্তা সম্পাদক: কাজী আতিকুর রহমান আতিক (আবির)

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নিবন্ধনপ্রাপ্ত নিউজপোর্টাল গভঃ রেজিঃ নং ১১৩

আজ রবিবার, ২৬ মে ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ, ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

উত্তর মুগদায় শিক্ষার্থী পিয়াস হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িত ০৩ আসামি’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব




বহুল আলোচিত রাজধানীর উত্তর মুগদায় কবি নজরুল কলেজের শিক্ষার্থী পিয়াস ইকবাল নূর’কে নৃশংসভাবে ছুরিকাঘাতে হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িত অন্যতম প্রধান ০৩ আসামি’কে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত আলামতসহ রাজধানীর মুগদা ও মানিকগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন, র‌্যাব প্রতিষ্ঠালগ্ন হতে বিভিন্ন ধরণের অপরাধ নির্মূলের লক্ষ্যে অত্যন্ত আন্তরিকতা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে আসছে। সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ নির্মূল ও মাদকবিরোধী অভিযানের পাশাপাশি খুন, চাঁদাবাজি, চুরি, কিশোর গ্যাং, ডাকাতি ও ছিনতাই চক্রের সাথে জড়িত বিভিন্ন সংঘবদ্ধ ও সক্রিয় সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্যদের গ্রেফতার করে সাধারণ জনগণের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বিনির্মাণের লক্ষ্যে র‌্যাবের জোরালো তৎপরতা অব্যাহত আছে। এছাড়াও বিভিন্ন হত্যাকান্ডে দীর্ঘদিন যাবৎ আত্মগোপনে থাকা চাঞ্চল্যকর ও ক্লু-লেস হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচনপূর্বক হত্যাকারীদেরকে গ্রেফতার করে দেশের সর্বস্তরের মানুষের কাছে সুনাম অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে র‌্যাব।

গত ০৭ মার্চ ২০২৪ তারিখ আনুমানিক ২২৪০ ঘটিকায় রাজধানীর উত্তর মুগদা এলাকায় ০১টি পুরাতন মোবাইল ফোন বিক্রয়ের টাকা পরিশোধের দ্ব›েদ্ব কবি নজরুল সরকারী কলেজের শিক্ষার্থী পিয়াস ইকবাল নূর এবং শামীম হোসেন’কে নৃশংসভাবে ছুরিকাঘাত করা হয়। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজন তাদেরকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক পিয়াস’কে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পরদিন ভিকটিম পিয়াস এর পিতা বাদী হয়ে মুগদা থানায় ০৬ জনকে আসামি করে এবং কয়েকজন অজ্ঞাতনামা উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন; যার মামলা নং-০৯, তারিখ ০৮ মার্চ ২০২৪। নৃশংস এই হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে এবং বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় প্রচারিত হলে দেশব্যাপী ব্যাপক আলোচিত হয়। র‌্যাব উক্ত হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে।

এরই ধারাবাহিকতায় গত রাতে র‌্যাব-৩ এর একটি আভিযানিক দল রাজধানীর মুগদা এবং মানিকগঞ্জের হরিরামপুর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে উক্ত হত্যাকান্ডের সাথে সরাসরি জড়িত অন্যতম প্রধান তিন আসামি ১। মোঃ খালিদ হাসান (১৮), পিতা-মোঃ মোস্তফা কামাল, মাহিগঞ্জ, রংপুর, ২। মোঃ আরিফ হোসেন (২১), পিতা-মোঃ আব্দুল মালেক, ভেদরগঞ্জ, শরীয়তপুর এবং ৩। মোঃ মেহেদী হাসান মিরাজ (২০), পিতা- সৈয়দ হক, মুগদা, ঢাকাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। উদ্ধার করা হয় হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত রক্তমাখা ছুরি। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা উক্ত হত্যাকান্ডের সাথে তাদের সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে তথ্য প্রদান করে।

গ্রেফতারকৃতদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, উক্ত হত্যা মামলার প্রধান আসামি আমির উদ্দিন আহমেদ অনিক চোরাই মোবাইল ফোন কেনা-বেচার ব্যবসা করতো। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ তারিখ অনিকের কাছ থেকে নিহত ভিকটিম পিয়াসের বন্ধু মাহির ৪৩০০ টাকা বাকিতে ০১টি চোরাই মোবাইল ফোন ক্রয় করে। ক্রয়কৃত মোবাইলের টাকা ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ তারিখের মধ্যে পরিশোধ করার কথা থাকলেও মাহির আর্থিক সমস্যার কারণে তা পরিশোধ করতে পারেনি। যথাসময়ে টাকা পরিশোধ না করায় অনিক তার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং বিভিন্ন সময় প্রাণনাশের হুমকি দিতে থাকে। পরবর্তীতে গত ০৭ মার্চ ২০২৪ তারিখ সন্ধ্যায় অনিক গ্রেফতারকৃত খালিদ, আরিফ, মিরাজ ও উক্ত হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত অপরাপর আসামি অর্নব এবং রাব্বী’কে নিয়ে মোবাইল বিক্রয়ের বাকি টাকা আদায়ের জন্য মাহিরের বাসায় যায়। তারা মাহিরকে বাসায় না পেয়ে মাহিরের মায়ের কাছে মোবাইল বিক্রয়ের পাওনা টাকা দাবী করে এবং অশোভনীয় আচরণ করে। সেখানে মাহিরের মা একদিন পর টাকা পরিশোধ করে দিবে বলে তাদের জানিয়ে দেয়। টাকা পরিশোধের আশ্বাস পেয়ে তারা মাহিরের বাসা থেকে চলে যায়। পরবর্তীতে মাহির বাড়িতে এসে তার মায়ের কাছে উক্ত ঘটনা জানতে পারে। বিষয়টি মাহির তার বন্ধু ভিকটিম পিয়াস ও শামীমকে জানায়।
জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানা যায় যে, ভিকটিম পিয়াস ও শামীম মধ্যস্থতাকারী হিসেবে বিষয়টি মীমাংসা করার জন্য ঘটনার দিন সন্ধ্যায় অনিকের সাথে উত্তর মুগদা এলাকায় অনিকের আড্ডার পয়েন্টে দেখা করে। এসময় অনিক, পিয়াস এবং শামীমকে তুই তুকারি সম্বোধন করে। পরবর্তীতে একই দিন রাত ১০,৩০ ঘটিকায় পিয়াস অনিককে ফোন দিয়ে লিটল এনজেল স্কুলের গলি পুনরায় আসতে বলে। অনিক সেখানে পোঁছালে পিয়াস এবং শামীম অনিকের কাছে কেন সে তাদের তুই তুকারি সম্বোধন করেছিল তার ব্যাখ্যা চায়। পূর্ব থেকেই এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, গ্রুপিং এবং সিনিয়র জুনিয়র দ›দ্ব থাকায় তাদের মধ্যে বিরোধ চলছিল। এসময় তাদের মধ্যে বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। অনিক ভিকটিম পিয়াস ও শামীমকে উচিত শিক্ষা দেয়ার জন্য গ্রেফতারকৃতদের ফোন করে সেখানে আসতে বলে। অনিকের ফোন পেয়ে অনিকের বন্ধু গ্রেফতারকৃত খালিদ, আরিফ, মিরাজসহ মামলার অপর আসামি অর্নব মোটরসাইকেলযোগে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় এবং গ্রেফতারকৃত খালিদ পার্শ্ববর্তী একটি গ্যারেজ থেকে বেসবল খেলার স্টিক নিয়ে আসে। এসময় তারা বেসবল খেলার স্টিক ও লাঠি দিয়ে ভিকটিম পিয়াস ও শামীমকে নৃশংসভাবে এলোপাতাড়ি আঘাত করতে থাকে। একপর্যায়ে মামলার অপর আসামি রাব্বী পার্শ¦বর্তী একটি দোকান থেকে আচমকা জোর পূর্বক একটি নতুন ধারালো ছুরি নিয়ে ভিকটিম পিয়াসের পিঠের ডান পাশে এবং শামীমের ডান কাধে আঘাত করলে তারা মাটিতে লুটিয়ে পড়ে বলে গ্রেফতারকৃতরা জানায়। ভিকটিমরা মাটিতে লুটিয়ে পড়লে গ্রেফতারকৃত খালিদ, আরিফ, মিরাজসহ অন্যান্যরা ভিকটিমদের পুনরায় এলোপাতাড়িভাবে বেসবল খেলার স্টিক ও লাঠি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাথাড়ি আঘাত করতে থাকে। পিয়াস এবং শামীমের চিৎকারে লোকজন জড়ো হলে তারা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজন ভিকটিমদের রক্তাক্ত ও মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক পিয়াসকে মৃত ঘোষণা করেন। পরবর্তীতে হত্যাকান্ডের ঘটনা এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে গ্রেফতারকৃতরা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপন চলে যায়।

৬। গ্রেফতারকৃত খালিদ স্থানীয় একটি স্কুল থেকে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত পড়ালেখা করে। পরবর্তীতে সে তার বাবার সাথে এ্যাম্বুলেন্সের কাজে সহযোগিতা করতো। সে উত্তর মুগদা এলাকায় ‘গ্যাং স্টার রাব্বী’ গ্রæপ এর সদস্য হিসেবে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, অলি-গলিতে মাদক ব্যবসা, মাদক সেবনসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছিল। সে ইতিপূর্বে রাজধানীর মুগদা থানায় সড়ক পরিবহন আইন মামলায় ১ মাস কারাভোগ করে জামিনে বের হয় বলে জানায়। এছাড়াও সে রাজধানীর পল্টন মডেল থানায় মাদক সংক্রান্ত মামলায় ১৫ দিন কারাভোগ করেছে বলে জানা যায়।

গ্রেফতারকৃত মিরাজ স্থানীয় একটি স্কুলে ১০ম শ্রেনী পর্যন্ত লেখাপড়া করে। সে মামলার আসামি রাব্বীর অন্যতম সহযোগী এবং ‘গ্যাং স্টার রাব্বী’ গ্রুপ এর সদস্য হিসেবে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছিল বলে জানা যায়। সে উক্ত হত্যাকান্ডের পর আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর গ্রেফতার এড়াতে মানিকগঞ্জ এলাকায় আত্মগোপন করে। পরবর্তীতে আত্মগোপনে থাকাবস্থায় র‌্যাব কর্তৃক গ্রেফতার হয়। গ্রেফতারকৃত আরিফ এইচএসসি পাশ করে স্থানীয় এলাকায় একটি ইন্টারনেট অফিসে কাজ করতো। সে উক্ত মামলার আসামি অনিকের অন্যতম সহযোগী হিসেবে কাজ করতো।

গ্রেফতারকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।
ঢাকা ,সোমবার ১১ র্মাচ এইচ বি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

Facebook Comments Box

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



 

প্রকাশক ও সম্পাদক: কাজী আবু তাহের মো. নাছির।

 

প্রধান নির্বাহী সম্পাদক: আফতাব খন্দকার (রনি)

 

বার্তা সম্পাদক: খন্দকার সোহাগ হাছান

সহ বার্তা সম্পাদক: কামাল হোসেন খান
সহ বার্তা সম্পাদক: কাজী আতিকুর রহমান আতিক (আবির)

প্রধান কার্যালয়: গ-১০৩/২ মধ্যবাড্ডা প্রগতি স্বরণী বাড্ডা ঢাকা-১২১২ | ব্রাঞ্চ অফিস: ২৪৭ পশ্চিম মনিপুর, ২য় তলা, মিরপুর-২, ঢাকা -১২১৬।

Phone: +8801714043198, Email: hbnews24@gmail.com

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি । সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © HBnews24.com